সচরাচর জিজ্ঞাসা


প্রশ্ন - ০১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কী?
ক. একটি গতানুগতিক ধারার সাধারণ সংগঠন। খ. একটি রাজনৈতিক সংগঠন।
গ. একটি লাভজনক ব্যবসায়িক সংস্থা। ঘ. একটি অরাজনৈতিক, অলাভজনক, জনকল্যাণমুলক ও স্বেচ্ছাসেবক সংস্থা।
প্রশ্ন - ০২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা ধরণ কী?
ক. স্বত্ত্বাধিকারী ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। খ. পাবলিক লিমিটেড সংস্থা।
গ. প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ০৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার যোগাযোগ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলো কী কী?
ক. মোবাইল ফোন খ. ইমেইল/ওয়েব সাইটঃ https://entab.org/
গ. ফেসবুক পেইজ/গ্রুপঃ ঘ. সবগুলো সত্য।
প্রশ্ন - ০৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কত সালে উদ্যোক্তা তৈরীর কার্যক্রম শুরু করে?
ক. ২০০৮ সালে খ. ২০১২ সালে
গ. ২০১০ সালে ঘ. ২০২১ সালে
প্রশ্ন - ০৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার গভর্নমেন্ট রেজিষ্ট্রেশন নাম্বার কত?
ক. গভর্নমেন্ট রেজিষ্ট্রেশন নাম্বারঃ ২৭৯ খ. গভর্নমেন্ট রেজিষ্ট্রেশন নাম্বারঃ ২০১২
গ. গভর্নমেন্ট রেজিষ্ট্রেশন নাম্বারঃ ৯৭২ ঘ. গভর্নমেন্ট রেজিষ্ট্রেশন নাম্বারঃ ৯২৭
প্রশ্ন - ০৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা প্রতিষ্ঠাতা ও মিশন লিডারের পুরানাম কী?
ক. মানিকুজ্জামান খান। খ. সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মানিকুজ্জামান।
গ. মোঃ মানিক মিয়া। ঘ. মোঃ মানিকুজ্জামান ভূঁইয়া।
প্রশ্ন - ০৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সূচনা লগ্ন থেকে অদ্যবধি পর্যন্ত যাবতীয় খরচ কে বহন করে আসছেন?
ক. বোর্ড অফ ডাইরেক্টরস। খ. সংস্থার সদস্যবৃন্দ।
গ. সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি। ঘ. সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
প্রশ্ন - ০৮ বর্তমানে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা বয়স কত?
ক. ০৯(নয়) বছর। খ. ১২(বার) বছর।
গ. ১০(দশ) বছর। ঘ. ২১(একুশ) বছর।
প্রশ্ন - ০৯ সর্বপ্রথম কোন প্রকল্প দিয়ে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল?
ক. বাংলাদেশ আমেরিকান কম্পিউটার ফোরাম। খ. প্রযুক্তি করপোরেশন।
গ. ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ। ঘ. অন্যান্য।
প্রশ্ন - ১০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার ০১নং প্রকল্পের আওতায় কী কী কার্যক্রম পরিচালিত হয়?
ক. খ.
গ. ঘ.
প্রশ্ন - ১১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার ০২নং প্রকল্পের আওতায় কী কী কার্যক্রম পরিচালিত হয়?
ক. খ.
গ. ঘ.
প্রশ্ন - ১২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় মোট কতজন সদস্য করার পরিকল্পনা করা হয়েছে?
ক. ০১(এক) মিলিয়ন। খ. ১০(দশ) মিলিয়ন।
গ. ২০(বিশ) মিলিয়ন। ঘ. ৩০(ত্রিশ) মিলিয়ন।
প্রশ্ন - ১৩ বর্তমানে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সদস্য সংখ্যা কত?
ক. ১০(দশ) হাজার(+) খ. ২০(বিশ) হাজার।
গ. ০১(এক) হাজার। ঘ. ৩০(ত্রিশ) হাজার।
প্রশ্ন - ১৪ বাংলাদেশ সরকারের কোন মন্ত্রণালয় সর্বপ্রথম বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থাকে স্বীকৃতি প্রদান করেন?
ক. সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। খ. স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
গ. জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ঘ. দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।
প্রশ্ন - ১৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সদস্যের ধরন কী?
ক. সাধারণ সদস্য। খ. আজীবন স্থায়ী সদস্য।
গ. বিনিয়োগকারী ও অনুদান প্রদান বিষয়ক সদস্য। ঘ. সবগুলো সত্য।
প্রশ্ন - ১৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে ব্যবসায়িক লাইসেন্স ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পেতে উদ্যোক্তাদেরকে সহযোগিতা করে থাকে?
ক. যে কোন বৈধ লাইসেন্স প্রাপ্তির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় সাধন করে। খ. সদস্যপদ প্রাপ্তির বিষয়ে যে কোন ব্যবসায়িক সংস্থার সাথে সমন্বয় সাধন করে।
গ. আয়কর, ভ্যাট রেজিষ্ট্রেশন, অডিট রিপোর্ট তৈরী ইত্যাদিতে সাহায্য করে। ঘ. সবগুলো পন্থা যথাযথভাবে অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ১৭ একজন উদ্যোক্তা থেকে কিভাবে নতুন উদ্যোক্তা তৈরী হয়ে থাকে?
ক. একজন উদ্যোক্তার মাধ্যমে যথাযথ প্রশিক্ষণ গ্রহণের মাধ্যমে। খ. একজন উদ্যোক্তার কর্মপদ্ধতি পর্যবেক্ষণ ও যথাযথ পরামর্শ গ্রহণ করে।
গ. একজন উদ্যোক্তার প্রকল্পে কাজ করে অভিজ্ঞতা অর্জনের মাধ্যমে। ঘ. সবগুলো পন্থা যথাযথভাবে অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ১৮ কোন বয়সের ব্যক্তি বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সদস্য হতে পারবেন?
ক. কর্মক্ষমতা সম্পন্ন ও উদ্যোগী সকল বয়সের ব্যক্তিবর্গ। খ. শুধুমাত্র যুবকগণ।
গ. শুধুমাত্র প্রবিণগণ। ঘ. শুধুমাত্র যুবুতিরা।
প্রশ্ন - ১৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা উদ্যোক্তা তৈরীর বিষয়ে কেন যুবসমাজের প্রতি বেশী গুরুত্ব দিয়ে থাকে?
ক. দেশের মোট জনসংখ্যার ৬৫% যুবসমাজ। খ. গড়ে প্রতিটি পরিবারের সদস্যের ২.৬৪% যুবসমাজ।
গ. যুবসমাজ বেশী সাহসী ও কর্মক্ষমতা সম্পন্ন। ঘ. সবগুলোই যৌক্তিক কারণ।
প্রশ্ন - ২০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার ওয়ার্কিং পার্টনার কারা?
ক. প্রধানমন্ত্রীর ----- খ. বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ড।
গ. বেসরকারী উদ্যোক্তা সংস্থা ও সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর। ঘ. সবগুলো সত্য।
প্রশ্ন - ২১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা গঠনের মূল ভিত্তি কী?
ক. উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে বেকারত্ব দূরীকরণ ও আর্থসামাজিক উন্নয়নকরণ। খ. পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা এবং মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে উদ্যোক্তা তৈরীকরণ।
গ. ভেজালমুক্ত খাদ্য উৎপাদন ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণ এবং একটি আত্মনির্ভরশীল ব্যবসায়িক জাতি গঠন। ঘ. পরিকল্পণা মোতাবেক সব গুলো বিষয় যথাযথ ভাবে বাস্তবায়নকরণ।
প্রশ্ন - ২২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার মূল লক্ষ্য কী?
ক. যথাযথ প্রশিক্ষনের মাধ্যমে দেশের প্রতিটি গ্রামে ০১(এক)জন করে উদ্যোক্তা তৈরী করা। খ. প্রতিটি উদ্যোক্তার মাধ্যমে কমপক্ষে গড়ে ০৪(চার) জন বেকার উদ্যোগীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা।
গ. আত্মনির্ভরশীল ব্যবসায়িক জাতি গঠনে যথাযথ ভাবে নাগরিক দ্বায়িত্ব পালন করা। ঘ. যথাযথ ভাবে সবগুলো লক্ষ্য বাস্তবায়ন করা।
প্রশ্ন - ২৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার মূল উদ্দেশ্য কী?
ক. বেকারত্ব, সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গি নির্মূল করা। খ. ভেজালমুক্ত খাদ্য উৎপাদন ও নারী-পুরুষের বৈষম্য দূরীকরণ।
গ. জলবায়ু পরিবর্তণের ভারসাম্য রক্ষা ও সুস্থধারার টেকসই সমাজ গঠনে যথাযথ দ্বায়িত্ব পালন করা। ঘ. যথাযথ ভাবে সবগুলো উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করা।
প্রশ্ন - ২৪ একজন উদ্যোক্তাকে সফলভাবে গড়ে তোলার পেছনে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার কী দ্বায়িত্ব পালন করে থাকে?
ক. যথাযথ ভাবে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করা এবং পর্যবেক্ষণ ও পরিচর্যায় আন্তরিক দ্বায়িত্ব পালন করা। খ. কার্যকরী মূলধনের প্রয়োজনে প্রকল্প ঋণ প্রাপ্তি এবং বিনিয়োগকারীর যোগান দেওয়া।
গ. ব্যবসার লোকসান পুষিয়ে দেবার জন্য প্রণোদনার ব্যবস্থা করা ও বিরোধ মোকাবেলায় আইনি সহায়তা দেওয়া। ঘ. আন্তরিকভাবে সবগুলো দ্বায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করা।
প্রশ্ন - ২৫ উদ্যোক্তা শব্দের অর্থ কী?
ক. ঝুকি মোকাবেলা করে ব্যবসায়িক ভাবে স্বাবলম্বী হওয়া। খ. অন্যের উপর নির্ভরশীল হয়ে ব্যবসা করা।
গ. বাজার জরিপ না করে যেকোন ব্যবসায় বিনিয়োগ করা। ঘ. কোনটাই না।
প্রশ্ন - ২৬ উদ্যোগী শব্দের অর্থ কী?
ক. খেয়াল খুশিমত যে কোন কাজে উৎসাহী হওয়া। খ. যে কোন উদ্যোক্তা দ্বারা তৈরী হওয়া উৎসাহী ব্যক্তি।
গ. অন্যের প্ররোচনায় প্ররোচিত হয়ে উৎসাহিত হওয়া। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ২৭ একজন উদ্যোগী ব্যক্তি কীভাবে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সদস্য হতে পারবেন?
ক. সংস্থার অনুমোদিত সমন্বকের সাথে যথাযথ ভাবে মতবিনিময় করে। খ. সংস্থার বর্তমান অবকাঠামো, ভবিষ্যৎ পরিকল্পণা এবং বিধিবিধান সমন্ধে যথাযথ জ্ঞান অর্জন করা।
গ. অনলাইনে সংস্থার নিজস্ব এ্যাপসের মাধ্যমে যথাযথ ভাবে অবেদন করে। ঘ. পর্যায়ক্রমে সদস্য প্রাপ্তির সব গুলো ধাপ যথাযথ ভাবে অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ২৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার একজন সদস্য কীভাবে তার সমস্যাগুলো সংস্থার নিকট উপস্থাপন করবেন?
ক. স্বশরীরে হেড অফিসে উপস্থিত হয়ে। খ. আবেদন আকারে ডাকযোগে প্রেরন করে।
গ. অন্যের উপর নির্ভশীল হয়ে। ঘ. সংস্থার এ্যাপস কুপন পূরণ করে।
প্রশ্ন - ২৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কীভাবে সমস্যাগুলোর সমাধান উদ্যোক্তার নিকট পৌছাবেন?
ক. সাধারণ ডাকযোগে। খ. সংস্থার কর্মচারীর বা সমন্বয়কের মাধ্যমে।
গ. সমস্যার ধরণ অনুযায়ী তাৎক্ষনিক ভাবে মোবাইল, এস.এম.এস, ইমেইল এবং এ্যাপসের মাধ্যমে। ঘ. প্রয়োজন অনুসারে যেবকান মাধ্যম অবলম্বন করে।
প্রশ্ন - ৩০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা অনুসারে একজন উদ্যোক্তার কী গুণ থাকা উচিত?
ক. কাজের বিষয়ে তেজি উদ্যোগী মনোভাব থাকা। খ. কাজ করার যথাযথ সামর্থ থাকা।
গ. আত্মনির্ভরশীল হওয়ার দৃঢ় সংকল্প থাকা। ঘ. একত্রে সবগুলো গুণের অধিকারী হওয়া।
প্রশ্ন - ৩১ একজন উদ্যোক্তার উৎপাদিত পণ্য বাজারজাত করণের বিষয়ে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কীভাবে সাহায্য করে থাকে?
ক. নিয়োমনীতির ভিত্তিতে নিজ উদ্যোগে উৎপাদিত পণ্য বিক্রির যথাযথ পরামর্শ প্রদান করে। খ. সমন্বয়কের সাথে যথাযথ ভাবে যোগাযোগ করে নতুন নতুন বাজার দখল করার পরামর্শ প্রদান করে।
গ. সরাসরি সংস্থার ই-কমার্সে বিক্রির পরামর্শ প্রদান করে। ঘ. উৎপাদিত পণ্য বিক্রির বিষয়ে সবগুলো পন্থা যথাযথ ভাবে অনুসরণের পরামর্শ প্রদান করে।
প্রশ্ন - ৩২ একজন উদ্যোক্তা কিভাবে বেকার উদ্যোগী ব্যক্তির কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে থাকে?
ক. স্বনির্ভরশীল প্রকল্প চালু করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে থাকে। খ. অন্যের প্রকল্পে চাকরি প্রদানের উপর ভরসা করে।
গ. সরকারি চাকরীর উপর ভরসা করে। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ৩৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার প্রাথমিক পরিকল্পণা মোতাবেক প্রতি গ্রামে ০১(এক)জন করে উদ্যোক্তা তৈরীর লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে পারলে মোট কত জনের আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে?
ক. ৬৮,০০০(আটষট্টি হাজার) জন। খ. ৮৭,৩১৬(সাতাশি হাজার তিনশত ষোল) জন।
গ. ৬৮,১০৭(আটষট্টি হাজার একশত সাত)জন। ঘ. ৩,৪৯,২৬৪(তিন লক্ষ উনপঁঞ্চাশ হাজার দুইশত চৌষট্টি)জন।
প্রশ্ন - ৩৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার প্রাথমিক পরিকল্পণা মোতাবেক প্রতি গ্রামে ০১(এক)জন করে উদ্যোক্তা তৈরীর লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করার পর গড়ে ০৪(চার) জনের কর্মসংস্থান করতে পারলে মোট কতজন বেকার উদ্যোগী ব্যক্তির কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে?
ক. ৬৮,০০০(আটষট্টি হাজার) জন। খ. ৮৭,৩১৬(সাতাশি হাজার তিনশত ষোল) জন।
গ. ৬৮,১০৭(আটষট্টি হাজার একশত সাত)জন। ঘ. ৩,৪৯,২৬৪(তিন লক্ষ উনপঁঞ্চাশ হাজার দুইশত চৌষট্টি)জন।
প্রশ্ন - ৩৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা উদ্যোক্তা তৈরীর ক্ষেত্রে কিভাবে সমন্বয় সাধন করে?
ক. আর্থিক সামর্থ্যের বিবেচনায়। খ. মেধা ও কর্মশক্তির বিবেচনায়।
গ. বাজারজাতকরণের দক্ষতার বিবেচনায়। ঘ. প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত উদ্যোক্তাদের মধ্যে থেকে ভিন্ন ভিন্ন মেধা ও সামর্থ্যের উদ্যোক্তা বাছাই করে একটি গ্রুপ বানিয়ে।
প্রশ্ন - ৩৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে কিভাবে ভেজাল মুক্ত পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাত করে থাকে?
ক. নিবন্ধনকৃত উদ্যোক্তাদেরকে যথাযথ প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান এবং নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও পরিচর্যা করে। খ. পণ্যের যথাযথ গুণগত মান বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মোতাবেক মোড়কজাতকরণের বিষয়ে পরামর্শ প্রদান করে।
গ. স্বাস্থ্য সম্মত পরিবেশে পণ্য মজুতজাতকরণ, সরবরাহ ও বাজারজাতকরণের বিষয়ে যথাযথ দিক নির্দেশনা দিয়ে। ঘ. ধারাবাহিক ভাবে সবগুলো নিয়ম নীতি যথাযথ ভাবে পালন করে।
প্রশ্ন - ৩৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সংখ্যা কত?
ক. ১০৭ জন। খ. ২১ জন।
গ. ১১ জন। ঘ. ০৫ জন।
প্রশ্ন - ৩৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় বোর্ড অব ডাইরেক্টরের সদস্য সংখ্যা কত?
ক. ২১ জন। খ. ০৭ জন।
গ. ০৫ জন। ঘ. ১১ জন।
প্রশ্ন - ৩৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদের সদস্য সংখ্যা কত?
ক. ১১ জন। খ. ২১ জন।
গ. ১০৭ জন। ঘ. ১১৮ জন।
প্রশ্ন - ৪০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদের সম্পাদকের সংখ্যা কত?
ক. ৩৩ জন। খ. ৪১ জন।
গ. ১১ জন। ঘ. ২১ জন।
প্রশ্ন - ৪১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদের সমন্বয়কের সংখ্যা কত?
ক. ৭২ জন। খ. ৬৪ জন।
গ. ৩৩ জন। ঘ. ৪১ জন।
প্রশ্ন - ৪২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদের মোট স্থায়ী সদস্য সংখ্যা কতজন করার পরিকল্পণা রয়েছে?
ক. এক লক্ষ এক জন। খ. এক হাজার এক জন।
গ. সাতাশি হাজার তিনশত ষোল জন। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ৪৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় প্রতিটি উপ-কমিটিতে কতজন সদস্য রাখার বিধান রয়েছে?
ক. ২১ জন। খ. ১১ জন।
গ. ১০৭ জন। ঘ. ০৫ জন।
প্রশ্ন - ৪৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতটি উপ-কমিটি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৩৩ টি। খ. ৪৪ টি।
গ. ২১ টি। ঘ. ১১ টি।
প্রশ্ন - ৪৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সকল উপ-কমিটিতে মোট কতজন সদস্য করার বিধান রয়েছে?
ক. ৩৩০ জন। খ. ৩৬৩ জন।
গ. ৪৮৪ জন। ঘ. ১২১ জন।
প্রশ্ন - ৪৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সমগ্র বাংলাদেশে মোট ইউনিয়ন প্রতিনিধির সংখ্যা কত?
ক. ৪৯২ জন। খ. ৪,৫৫৩ জন।
গ. ৩,৩০০ জন। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ৪৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় গ্রাম্য প্রতিনিধির সংখ্যা কত?
ক. ৬৪ হাজার। খ. ৮৭,৩১৬ জন।
গ. ৮৭ হাজার। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ৪৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক গ্রাম্য প্রতিনিধিদের কার্যক্রম কে পর্যবেক্ষণ করবেন?
ক. উপজেলা প্রতিনিধি। খ. ইউনিয়ন প্রতিনিধি।
গ. জেলা সমন্বয়ক। ঘ. বিভাগীয় সমন্বয়ক।
প্রশ্ন - ৪৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক ইউনিয়ন প্রতিনিধিদের কার্যক্রম কে পর্যবেক্ষণ করবেন?
ক. উপজেলা সমন্বয়ক। খ. ইউনিয়ন প্রতিনিধি।
গ. জেলা সমন্বয়ক। ঘ. বিভাগীয় সমন্বয়ক।
প্রশ্ন - ৫০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক উপজেলা প্রতিনিধিদের কার্যক্রম কে পর্যবেক্ষণ করবেন?
ক. উপজেলা প্রতিনিধি। খ. সংশ্লিষ্ট সম্পাদক।
গ. জেলা সমন্বয়ক। ঘ. বিভাগীয় সমন্বয়ক।
প্রশ্ন - ৫১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক জেলা সমন্বয়কদের কার্যক্রম কে পর্যবেক্ষণ করবেন?
ক. সভাপতি। খ. সংশ্লিষ্ট সম্পাদক।
গ. জেলা সমন্বয়ক। ঘ. বিভাগীয় সমন্বয়ক।
প্রশ্ন - ৫২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক বিভাগীয় সমন্বয়কদের কার্যক্রম কে পর্যবেক্ষণ করবেন?
ক. সভাপতি। খ. সংশ্লিষ্ট সম্পাদক।
গ. জেলা সমন্বয়ক। ঘ. বিভাগীয় সমন্বয়ক।
প্রশ্ন - ৫৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা মোতাবেক সম্পাদকগণ কোন দ্বায়িত্ব পালন করবেন?
ক. বিভাগীয় সমন্বয়কদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন। খ. জেলা সমন্বয়কদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন।
গ. নিজস্ব দপ্তরের সংশ্লিষ্ঠ বিষয়ে দ্বায়িত্ব পালন করবেন। ঘ. উপজেলা সমন্বয়কদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন।
প্রশ্ন - ৫৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সার্বিক কর্মপরিকল্পণা ও বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত কোন পর্ষদ থেকে গ্রহণের বিধান রয়েছে?
ক. উপদেষ্টা মন্ডলীর পর্ষদ থেকে। খ. বোর্ড অব ডাইরেক্টর পর্ষদ থেকে।
গ. কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদ থেকে। ঘ. সকল পর্ষদের সমন্বয়ে।
প্রশ্ন - ৫৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা অনুসারে কেন্দ্রীয় কার্যকরী পর্ষদের কাজ কী?
ক. বোর্ড অব ডাইরেক্টর সভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা। খ. নিজস্ব সিদ্ধান্ত মোতাবেক কার্যক্রম পরিচালনা করা।
গ. শুধুমাত্র বার্ষিক সাধারণ সভায় উপস্থিত হয়ে ভোট দেয়া। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ৫৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় একজন সমন্বয়কের কাজ কী?
ক. নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি করা, প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেওয়া, পর্যবেক্ষণ করা এবং আন্তরিকভাবে পরিচর্যা করা। খ. সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে যথাযথ ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা।
গ. উদ্যোক্তাদের যেকোন সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। ঘ. সবগুলো দ্বায়িত্ব আন্তরিক ভাবে পালন করা।
প্রশ্ন - ৫৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় বিশ্বের কতটি দেশে উদ্যোক্তা তৈরীর কার্যক্রম পরিচালনার বিধান রয়েছে?
ক. বিশ্বের ৫০টি দেশে। খ. বিশ্বের ৪০টি দেশে।
গ. বিশ্বের ১০৫টি দেশে। ঘ. বিশ্বের ৮০টি দেশে।
প্রশ্ন - ৫৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী প্রবাসী পর্ষদের কাজ কী?
ক. সংস্থার কর্মপরিকল্পণা ও নীতি বাস্তবায়ন করা। খ. নতুন নতুন উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারী সৃষ্টি করা।
গ. সংস্থার সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে যথাযথ ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করা।
প্রশ্ন - ৫৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় মোট প্রবাসী উপ-কমিটির সদস্য সংখ্যা কত?
ক. ৫৫০ জন। খ. ৪৪০ জন
গ. ১,১০০ জন। ঘ. ৩,৩০০ জন।
প্রশ্ন - ৬০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় মোট কতটি ডিগ্রী কলেজে উপ-কমিটি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৩০০ টি। খ. ৩৩০ টি।
গ. ৪০০ টি। ঘ. ৪৪০ টি।
প্রশ্ন - ৬১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় দেশের ডিগ্রী কলেজে উপ-কমিটিতে কতজন সদস্য করার বিধান রয়েছে?
ক. খ.
গ. ঘ.
প্রশ্ন - ৬২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় মোট কতটি ইউনিভার্সিটিতে উপ-কমিটি করার বিধান রয়েছে?
ক. খ.
গ. ঘ.
প্রশ্ন - ৬৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় দেশের ইউনিভার্সিটির উপ-কমিটিতে কতজন সদস্য করার বিধান রয়েছে?
ক. খ.
গ. ঘ.
প্রশ্ন - ৬৪ একজন বিনিয়োগকারী কিসের ভিত্তিতে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থায় বিনিয়োগ করবেন?
ক. সংস্থার শেয়ার ক্রয়করে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে। খ. সংস্থার বাস্তব অবকাঠামো এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পণার যৌক্তিক বিষয় যথাযথ ভাবে পর্যবেক্ষণ ও পর্যালোচনা করে।
গ. সরকার কর্তৃক অনুমোদিত ডকুমেন্টস ও বৈধতার উপর ভিত্তি করে। ঘ. যথাযথ ভাবে সবগুলো বিষয়ের উপর জরিপ ও আন্তরিক সমঝোতার ভিত্তিতে বিনিয়োগ করবেন।
প্রশ্ন - ৬৫ একজন প্রবাসী প্রবাসে থাকা অবস্থায় কিভাবে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সদস্য হতে পারবেন?
ক. নিকটস্থ প্রবাসী শাখায় যোগাযোগ করে। খ. সংস্থার অনলাইন এ্যাপসের মাধ্যমে আবেদন করে।
গ. সংস্থার ওয়েব সাইটে প্রবাসী সদস্য প্রাপ্তির দিক নির্দেশনা অনুসরণ করে। ঘ. সবগুলো তথ্যের উপর ভিত্তি করে।
প্রশ্ন - ৬৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সমগ্র বিশ্বে মোট কতটি প্রবাসী উপ-কমিটি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৪০ টি। খ. ১০০ টি।
গ. ১৪০ টি। ঘ. ৪০০ টি।
প্রশ্ন - ৬৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় প্রতিটি প্রবাসী উপ-কমিটিতে কতজন সদস্য রাখার বিধান হয়েছে?
ক. ২১ জন। খ. ১০১ জন।
গ. ১১ জন। ঘ. ১০৭ জন।
প্রশ্ন - ৬৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সমগ্র বিশ্বে সর্বমোট প্রবাসী উপ-কমিটিতে কতজন সদস্য করার বিধান হয়েছে?
ক. ৪৪০ জন। খ. ৫৫০ জন।
গ. ১১ জন। ঘ. ২১ জন।
প্রশ্ন - ৬৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় মোট কতজন উদ্যোক্তা করার পরিকল্পণা করা হয়েছে?
ক. ১০(দশ) লক্ষ। খ. ০১(এক) লক্ষ।
গ. ৫০(পঞ্চাশ) লক্ষ। ঘ. ০১(এক) কোটি।
প্রশ্ন - ৭০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সদস্যদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পণা কী?
ক. আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও স্বনির্ভরশীল করে গড়ে তোলা। খ. আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও উন্নত জাতি গঠন করা।
গ. সমাজে ধনী দরিদ্রের বৈষম্য দূরীকরণ। ঘ. সবগুলো পরিকল্পণা যথাযথ ভাবে বাস্তবায়ন করা।
প্রশ্ন - ৭১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন বিভাগীয় সমন্বয়ক করার বিধান রয়েছে?
ক. ০৬ জন। খ. ০৮ জন।
গ. ০৫ জন। ঘ. ১০ জন।
প্রশ্ন - ৭২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন জেলা সমন্বয়ক করার বিধান রয়েছে?
ক. ৬৮ জন। খ. ৬০ জন।
গ. ৬৪ জন। ঘ. ৫০ জন।
প্রশ্ন - ৭৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন উপজেলা সমন্বয়ক করার বিধান রয়েছে?
ক. ৪৯২ জন। খ. ৫০০ জন।
গ. ৩৯২ জন। ঘ. ৪০০ জন।
প্রশ্ন - ৭৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন ইউনিয়ন প্রতিনিধি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৪,৫৫৩ জন। খ. ৫,৫৫৩ জন।
গ. ৪,০০০ জন। ঘ. ৬,৫৫৩ জন।
প্রশ্ন - ৭৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন গ্রাম্য প্রতিনিধি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৬৪,০০০ জন। খ. ৮৭,০০০ জন।
গ. ৮৭,৩১৬ জন। ঘ. ১০০,০০০ জন।
প্রশ্ন - ৭৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন পৌরসভা প্রতিনিধি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৩,৩০০ টি। খ. ৩,০০০ টি।
গ. ৩০০ টি। ঘ. ৪,০০০ টি।
প্রশ্ন - ৭৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সর্বমোট কতজন সিটি কর্পোরেশন প্রতিনিধি করার বিধান রয়েছে?
ক. ৩৯০ টি। খ. ৩৬০ টি।
গ. ৪০০ টি। ঘ. ৫০০ টি।
প্রশ্ন - ৭৮ জলবায়ুর ভারসাম্য রক্ষায় বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. জলবায়ুর পরিবর্তনের ভয়াবহ পরিণীতি সম্মন্ধে গণসচেতনতা বৃদ্ধি ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা। খ. বৃক্ষ রোপন কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করা।
গ. সরকারের সাথে একযোগে কাজ করা। ঘ. যথাযথ ভাবে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৭৯ মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গি নির্মূলে উদ্যোক্তা তৈরী করা। খ. বিপথগামীদেরকে পূণর্বাসন প্রকল্পের আওতায় এনে যথাযথ ভাবে চিকিৎসা, প্রশিক্ষণ ও পূণর্বাসন করা।
গ. নিজের জীবন ও পরিবারের ঝুকি সম্মন্ধে সচেতন করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮০ অনাথ শিশুদের জন্য বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. প্রতিটি উপ-কমিটির মাধ্যমে অনাথ শিশুর সংখ্যা জরিপ করা। খ. সমস্যাগুলো বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
গ. উন্নত জাতি গঠনে নিজস্ব দ্বায়িত্ব পালন করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮১ প্রতিবন্ধিদের জন্য বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. যথাযথ চিকিৎসা প্রদান করা। খ. সকল প্রতিবন্ধিদের জন্য নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা।
গ. সমাজের সর্বসাধারণকে সচেতন করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮২ অসহায় বৃদ্ধদের জন্য বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. মেধা ও সামর্থ্য বিবেচনায় বিভিন্ন শ্রেণীতে ভাগ করা এবং অভিজ্ঞতা গুলো যথাযথ ভাবে কাজে লাগানো। খ. অসহায় বৃদ্ধদের বৃদ্ধাশ্রমের আওতায় এনে যথাযথ চিকিৎসা ও সেবা প্রদান করা।
গ. যথাযথ ভাবে এদের নাগরিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮৩ নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা। খ. নিজেদের নাগরিক অধিকার সম্মন্ধে সচেতন করে গড়ে তোলা।
গ. নারী ও পুরুষের ক্ষমতার ভারসাম্য রক্ষায় যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮৪ সংখ্যা লঘুদের জন্য বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার পরিকল্পণা কী?
ক. নাগরিক অধিকার সম্মন্ধে সচেতন করা। খ. উদ্যোক্তা তৈরীর প্রকল্পের আওতায় আনা।
গ. সমঅধিকারের ভিত্তিতে অত্মনির্ভরশীল করে গড়ে তোলা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো দ্বায়িত্ব পালন করা।
প্রশ্ন - ৮৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় সুস্থ্য ধারার সমাজ গঠনের পরিকল্পণা কী?
ক. ব্যবসায়িক ভাবে স্বাবলম্বী হওয়ার সম্পৃতি গঠন। খ. সামাজিক সৌহার্দ ও সম্পৃতি বৃদ্ধি।
গ. জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সৌহার্দ ও সম্পৃতি বৃদ্ধি। ঘ. সবগুলো যথাযথ ভাবে বাস্তবায়ন করা।
প্রশ্ন - ৮৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় টেকসই উন্নত জাতি গঠনের পরিকল্পণা কী?
ক. উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে বেকারত্ব নির্মূল করা। খ. নারীজাতির স্বনির্ভরশীলতা ও বৈষম্য নির্মূল করা।
গ. জলবায়ু পরিবর্তণের ভারসাম্য রক্ষা করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো বাস্তবায়ন করা।
প্রশ্ন - ৮৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার সাথে উদ্যোক্তাগণ কিভাবে কাজ করে থাকেন?
ক. অভিজ্ঞতা আদান প্রদান করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ। খ. সমস্যা সমাধানে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ।
গ. আন্তরিক সমঝোতায় ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করা। ঘ. আন্তরিকতার সাথে সবগুলো কার্যাবলী যথাযথ ভাবে সম্পাদন করা।
প্রশ্ন - ৮৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে উদ্যোক্তাদেরকে আর্থিক সহযোগিতা করে থাকে?
ক. যেকোন ঋণ প্রাপ্তিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় সাধন করে। খ. যেকোন অনুদান বা প্রণোদনা প্রাপ্তিতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করে।
গ. দেশী-বিদেশী বিনিয়োগকারীদেরকে প্রকল্পে বিনিয়োগ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করে। ঘ. আন্তরিক ভাবে সবগুলো পদক্ষেপ পালন করে।
প্রশ্ন - ৮৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে উদ্যোক্তাদেরকে আইনই সহযোগিতা করে থাকে?
ক. সংস্থার লিগ্যাল এ্যাডভাইজারের মাধ্যমে যথাযথ পরামর্শ প্রদান করে। খ. সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তি বা কর্তৃপক্ষের সাথে যথাযথ ভাবে সমঝোতা করে।
গ. সরাসরি মামলার এ্যাড পার্টি হয়ে। ঘ. আইনগত ভাবে সবগুলো দ্বায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করে।
প্রশ্ন - ৯০ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে উদ্যোক্তাদেরকে প্রণোদোনা সহযোগিতা করে থাকে?
ক. প্রণোদোনা প্রাপ্তির বিষয়ে যথাযথ জরিপ করে। খ. সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যথাযথ ভাবে সমন্বয় করে।
গ. সংস্থার সোস্যাল ওয়েলফেয়ার ফান্ড থেকে। ঘ. সবগুলো পন্থা অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ৯১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে দূর্যগ মোকাবেলায় সহযোগিতা করে থাকে?
ক. আপামোর জনসাধারণকে আগাম বার্তার মাধ্যমে সচেতন করে। খ. তাৎক্ষনিক অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করে।
গ. দেশী বিদেশী অনুদান সংগ্রহ করে। ঘ. আর্তমানবতার সেবায় সবগুলো দ্বায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করে।
প্রশ্ন - ৯২ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে মহামারী রোগবালাই মোকাবেলায় সাহায্য সহযোগিতা করে থাকে?
ক. গণসচেতনতা বৃদ্ধি করা। খ. নিরাপদ স্থানে অবস্থান করা।
গ. যথাযথ টিকা ও চিকিৎসা গ্রহণে সাহায্য করা। ঘ. আর্তমানবতার সেবায় সবগুলো দ্বায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করে।
প্রশ্ন - ৯৩ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা থেকে অনুদান প্রাপ্তিতে উদ্যোক্তাদেরকে সহযোগিতা করে থাকে?
ক. আন্তর্জাতিক সংস্থার সাথে যোগাযোগ করে। খ. অনুদান প্রাপ্তির বিষয় যথাযথ ভাবে উপস্থাপন করে।
গ. সংস্থার আন্তর্জাতিক শাখার মাধ্যমে সমন্বয় করে। ঘ. সবগুলো মাধ্যম অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ৯৪ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে সরকারী অনুদান প্রাপ্তিতে উদ্যোক্তাদেরকে সহযোগিতা করে থাকে?
ক. সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যথাযথ ভাবে যোগাযোগ করে। খ. অনুদান প্রাপ্তির বিষয় যথাযথ ভাবে উপস্থাপন করে।
গ. যথাযথ ভাবে সমন্বয় সাধন করে। ঘ. সবগুলো মাধ্যম অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ৯৫ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা উদ্যোক্তাদেরকে ঋণের কিস্তি পরিশোধের বিষয়ে কিভাবে সহযোগিতা করে থাকে?
ক. যথাযথ ভাবে পরামর্শ প্রদান করে। খ. আয় বুঝে ব্যায় করার পরামর্শ প্রদান করে।
গ. ঋণ পরিশোধের বিষয়ে যথাযথ ভাবে তাগাদা প্রদান করে। ঘ. সবগুলো মাধ্যম অনুসরণ করে।
প্রশ্ন - ৯৬ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে উদ্যোক্তাদের প্রতিযোগিতা মূলক গ্রেডিং করে থাকে?
ক. সংস্থার নিয়ম কানুন যথাযথ পালন করছে কি না? খ. ব্যবসায়িক পারফর্মেন্সের উপর বিবেচনা করে।
গ. কত তাড়াতাড়ি ব্যবসায়িক টার্গেট পূরণ করেছে? ঘ. সব বিষয় য়থাযথ ভাবে বিবেচনা করে।
প্রশ্ন - ৯৭ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থা কিভাবে সফল উদ্যোক্তাদেরকে সম্মাণনা পদক দিয়ে থাকে?
ক. সংস্থার বাৎসরিক নির্ধারিত সভায় সম্মাণনা পদক প্রদান করে। খ. জাতীয় ভাবে সম্মাণনা পদক প্রাপ্তির বিষয়ে সাহায্য করে।
গ. আন্তর্জাতিক ভাবে সম্মাণনা পদক প্রাপ্তির বিষয়ে সাহায্য করে। ঘ. সবগুলো বিষয়ে সাহায্য করে।
প্রশ্ন - ৯৮ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার নীতিমালায় বর্তমানে এর কার্যক্রমের পরিধি কত দূর পর্যন্ত বিস্তৃত?
ক. সমগ্র পৃথিবী জুড়ে। খ. বাংলাদেশসহ ৪০টি দেশ।
গ. ১৫০টি দেশ পর্যন্ত। ঘ. ১২০টি দেশ পর্যন্ত।
প্রশ্ন - ৯৯ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার কার্যক্রম কোথায় গিয়ে শেষ হবে?
ক. বোর্ড সভার পরবর্তী সিদ্ধান্ত ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত। খ. প্রতি গ্রামে একজন করে উদ্যোক্তা তৈরী হলে।
গ. ২০৪১ সালে। ঘ. কোনটাই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ১০০ সরকারের পরিকল্পণা মোতাবেক একটি টেকসই, মজবুত ও উন্নত জাতি গঠনের ভিশনে বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার গুরুত্ব কী?
ক. বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার গুরুত্ব অসামান্য খ. বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার তেমন কোন প্রয়োজন নাই।
গ. বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার গুরুত্ব সামান্য। ঘ. কোনটিই সত্য নয়।
প্রশ্ন - ১০১ বাংলাদেশ উদ্যোক্তা সংস্থার ভবিষ্যৎ পরিকল্পণা কি?
ক. দেশের নতুন নতুন বাজার দখল করা। খ. আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে বিভিন্ন মেলায় অংশগ্রহণ করে নিজেদের উৎপাদিত পণ্যের পরিচিতি লাভ করা।
গ. উদ্যোক্তা তৈরীর মাধ্যমে একটি টেকসই, মজবুত ব্যবসায়িক জাতি গঠন করা। ঘ. পরিকল্পণা মোতাবেক যথাযথ ভাবে সবগুলো কর্ম বাস্তবায়ন করা।
Google Play App Store       Desktop